সোমালিয়ায় ভারতীয় জাহাজ ছিনতাই

মুক্তবার্তা ডেস্ক:সোমালিয়ার জলদস্যুরা ভারতের একটি মালবাহী জাহাজ ছিনতাই করেছে। দেশটির আধা-স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল পুটল্যান্ড উপকূল থেকে জাহাজটি ছিনতাই করা হয় বলে সোমবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়।

পুটল্যান্ডের জলদস্যুবিরোধী সংস্থার সাবেক পরিচালক আবদিরিজাক মোহাম্মদ দিরির বলেন, ‘আমরা বুঝতে পেরেছি সোমালিয়ার জলদস্যুরা ভারতের একটি বাণিজ্যিক জাহাজ ছিনতাই করেছে।

সোমবার টাইমস অব ইন্ডিয়াকে ভারত শিপিং-এর মহাপরিচালক মালিনি শংকর জানান, গতকাল রবিবার ১১ জন ভারতীয় নাবিকসহ একটি মালবাহী জাহাজ সোমালিয়ার উপকূল থেকে জলদস্যুরা ছিনতাই করেছে। ছিনতাই হওয়া জাহাজটি খুব বড় নয়। ভারতীয় পতাকাবাহী জাহাজটি দুবাই থেকে ইয়েমেন যাওয়ার পথে ছিনতাইয়ের শিকার হয়।

মালিনি শংকর আরও জানান, জলদস্যুরা ছিনতাই হওয়া জাহাজটির পণ্যদ্রব্যে আগ্রহ। এখন পর্যন্ত তারা মুক্তিপণ দাবি করেনি। তবে কার্গো জাহাজটি বিস্তারিক এখনো জানা যায়নি। তীরে পৌঁছার পর মালামাল লুণ্ঠন করে হয়তো জাহাজটিকে ছেড়ে দেয়া হবে।

ডেনাইল নামে একটি ব্যক্তিগত ওয়েবসাইটে বলা হয়, বন্দর নগরী হবইয়ো শহর থেকে ৫০ কিলোমিটার দক্ষিণে জাহাজটিতে হামলা চালানো হয়।

দুই সপ্তাহ আগে মোগাদিসু যাওয়ার পথে একটি তেলবাহী জাহাজ জব্দ করে জলদস্যুরা। পরে অবশ্য কোনো ধরনের শর্ত ছাড়াই জাহাজটি ছেড়ে দেয় তারা। ২০১২ সালে সোমালিয়া উপকূলে জাহাজ ছিনতাই বন্ধ হওয়ার পর এটিই প্রথম ঘটনা।

সোমালিয়া উপকূলে সাধারণত মুক্তিপণের টাকা আদায়ের জন্য জাহাজ ছিনতাই করা হয়। তবে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে সমুদ্রে ডাকাতির পরিমাণ উল্লেখযোগ্য হারে কমেছে। স্থানীয় মৎস্যজীবীদের সহযোগিতা এবং আন্তর্জাতিক সামরিক বাহিনীর ব্যাপক টহলের কারণে সমুদ্রে জলদস্যুদের প্রভাব কমেছে। ২০১১ সালে সমুদ্রে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে সবচেয়ে বেশি। ঐ বছর সমুদ্রে ২৩৭টি হামলার ঘটনা ঘটে। ডাকাতির কারণে প্রতি বছর আট বিলিয়ন ডলারের ক্ষয়ক্ষতি হয়।

Related posts

Leave a Comment