মালিকের ছেলের বন্ধু পরিচয়ে ‘রুম ভাড়া নেন’ সাফাত

মুক্তবার্তা ডেস্ক: জন্মদিনের পার্টির কথা বলে রেইনট্রি হোটেলে নিয়ে অস্ত্রের মুখে দুই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে ধর্ষণের মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে এখন রিমান্ডে আছেন আপন জুয়েলার্সের মালিকের ছেলে সাফাত ও তার বন্ধু সাদমান সাকিফ। এক সাংসদের ছেলের বন্ধু পরিচয়ে সাফাত আহমেদ বনানীর ওই হোটেলের কক্ষ ভাড়া করেছিলেন বলে মামলার তদন্ত সংশ্লিষ্ট একজন পুলিশ কর্মকর্তা জানিয়েছেন। বনানীর চার তারকা হোটেলটির অন্যতম মালিক ওই এমপি পুত্র।

সাফাত জিজ্ঞাসাবাদে তার বন্ধু পরিচয়ে হোটেলের দুটি কক্ষ ভাড়া নেওয়ার কথা জানিয়েছেন বলে জানান মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার মো. শাহজাহান।

“তাই সাফাতরা ওই রাতে হোটেল কক্ষে কী করছেন, তা কোনো কর্মচারী দেখতেও আসেনি,” বলেন তিনি। ওই বন্ধুকেও এই মামলার তদন্তের আওতায় আনা হবে বলে জানান গোয়েন্দা পুলিশের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা। ধর্ষিতাদের একজনও ওই রাতে মাহিম নামে একজনের দেখা পাওয়ার কথা বলেছিলেন গণমাধ্যমে।

তাদের জোর করে রুমে নেওয়ার আগে মাহিম কেক নিয়ে তাদের কাছে গিয়েছিলেন জানিয়ে ওই ছাত্রী বলেন, “মাহিম নামের একজন নিজেকে হোটেলটির মালিক পরিচয় দিয়ে সেদিন সাফাতের জন্মদিনের জন্য একটি কেক উপহার নিয়ে এসেছিলেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে গোয়েন্দা পুলিশের উপ-কমিশনার শেখ নাজমুল আলম বলেন, “হোটেলের ম্যানেজার মাহিমের নির্দেশে সাফাতের জন্মদিনের কেক নিয়ে গিয়েছিলেন।” তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, “এখনও গুরুত্বপূর্ণ নয়। তবে ভবিষ্যতে মামলার কোনো প্রয়োজনে দরকার হলে তাকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।” এদিকে শনিবার রাতেও বনানীর ওই হোটেলে অভিযান চালানোর কথা জানিয়েছেন গোয়েন্দা কর্মকর্তা নাজমুল আলম।

গত ৬ মে বনানী থানায় সাফাত ও তার দুই বন্ধু সাদমান সাকিফ ও নাঈম আশরাফসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলাটি দায়ের হয়। এরপর তদন্তে নামা বনানী থানার কর্মকর্তারা বলেছিলেন, ঢাকার একজন সংসদ সদস্যের ছেলের সঙ্গে হোটেলের ব্যবসা রয়েছে সাফাত ও তার এই বন্ধুদের।  আসামিদের মধ্যে সাফাত ও সাকিফকে গত বৃহস্পতিবার সিলেট থেকে গ্রেপ্তারের পর শুক্রবার রিমান্ডে পায় পুলিশ।

Related posts

Leave a Comment