বিলুপ্ত হলো সাহারার সংগঠন

মুক্তবার্তা ডেস্ক:আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সভাপতির দায়িত্ব সাহারা খাতুন পেয়েছিলেন সেই ২০০০ সালে। সংগঠনের নিয়ম অনুযায়ী ২০০৩ সালেই সম্মেলন করে নতুন নেতৃত্ব বাছার কথা ছিল। কিন্তু সেই সম্মেলন হয়নি ১৭ বছরেও। আর নতুন নেতৃত্ব বেছে নেয়ার কোনো উদ্যোগও ছিল না সংগঠনটির। অবশেষে হস্তক্ষেপ করলো মূল দল। বিলুপ্ত করা হয়েছে কমিটি।

সাহারা খাতুন ২০০৯ সালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার পরও আওয়ামী লীগপন্থী আইনজীবীদের নেতৃত্বে থেকে যান। মন্ত্রিত্ব হারালেও সংসদ সদস্য পদের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যও তিনি।

সাহারা খাতুন ও গত সাত বছর ধরে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটরের দায়িত্ব পালন করে যাওয়া আবু আবদুল্লাহকে ঘিরে সরকারপন্থী আইনজীবীদের মধ্যে অসন্তোষও প্রকাশ্য। আর সংগঠনের মধ্যে কোন্দলের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে নানা সময়। সবশেষ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ও ঢাকা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীদের হারের জন্যও দায়ী করা হচ্ছে এই বিভেদকে।

প্রভাবশালী পেশাজীবী সমিতির নির্বাচনে পরাজয়ে কঠোর হলো আওয়ামী লীগ। গত বুধবার রাতে দলের শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ ভেঙে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয় বলে  নিশ্চিত করেছেন বৈঠকে উপস্থিত একাধিক নেতা। একই বৈঠকে সরকারপন্থী আইনজীবীদের আরেক সংগঠন বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদকেও বিলুপ্ত করার সিদ্ধান্ত হয়।

আওয়ামী লীগ নেতারা জানান, পেশাজীবীদের মধ্যে আইনজীবীরাই সবচেয়ে প্রভাব বিস্তার করে। বিভিন্ন দুঃসমেয় তারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। অন্য পেশাজীবীদের মধ্যে আওয়ামী লীগ সমর্থিত একটি সংগঠন থাকলেও আইনজীবীদের মধ্যে সংগঠন দুটি। এ দুই সংগঠনের নেতাদের দ্বন্দ্বের কারণেই নির্বাচনে পরাজয় হয়

Related posts

Leave a Comment