তাইওয়ানে কুকুর, বিড়াল খাওয়া নিষিদ্ধ

মুক্তবার্তা ডেস্ক:তাইওয়ানে খাদ্য হিসাবে কুকুর ও বিড়ালের মাংস খাওয়া নিষিদ্ধ হলো। গতকাল মঙ্গলবার দেশটির সংসদে এক সংশোধনী বিলের মাধ্যমে মানুষের জন্য কুকুর ও বিড়ালের মাংস গ্রহণ নিষিদ্ধ করা হয়।

সংসদে এই বিলের মাধ্যমে শুধুমাত্র কুকুর, বিড়ালের মাংস খাদ্য হিসাবে গ্রহণ নয়, এর পাশাপাশি ভ্রমণের সময়ে মোটর বাইক কিংবা যেকোনো যানবাহনে পাশের আসনে পোষ্যকে নেয়া যাবে না। তাইওয়ানের যেকোনো নাগরিককে এই আইনের লঙ্ঘন করতে দেখা গেলে তার জরিমানাসহ দুই বছরের বেশি কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে। এছাড়া কোন পোষ্যের ছবি কিংবা নাম জনসম্মুখে প্রকাশ করা যাবে না।

মূলত দেশটির প্রাণী সংরক্ষণের জন্য উন্নত পদক্ষেপের অংশ হিসেবে এই আইন করা হয়েছে বলে জানায় বিবিসি। মঙ্গলবার তাইওয়ান সরকারের নেয়া প্রাণী সংরক্ষণের এই পদক্ষেপকে ‘ল্যান্ডমার্ক’ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে এও বলা হয়েছে, এশীয় কোন দেশে প্রাণী সংরক্ষণের জন্য এই প্রথম এতো কড়াকড়ি আইন করা হলো।

২০০১ সালে তাইওয়ানে আইন করে পোষ্যর মাংস বিক্রি নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। সেই সময়ে এটিকে ‘অর্থনৈতিক উদ্দেশে’ বলে দাবি করা হয়।

তাইওয়ানে এক সময়ে প্রত্যেক পরিবারেই কুকুরের মাংস নিয়মিত খাবারের মেনুতে রাখা হতো। কিন্তু এখন প্রায় প্রত্যেক পরিবারেই পোষ্যকে গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হিসেবেই বিবেচনা করা হয়।

গত বছর তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট তিসাই ইনং-ওয়ান অবসরপ্রাপ্ত তিনটি দেহরক্ষী কুকুর দপ্তক নেন। এছাড়াও রয়েছে তার দুইটি বিড়াল। যাদের নাম কুকি ও অ্যা-তিসাই।

গত বছর অক্টোবরে তাইওয়ানের এক ব্যক্তিকে দশ মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়। তার বিরুদ্ধে রাস্তার এক বিড়ালকে হত্যার অভিযোগ ছিল।

Related posts

Leave a Comment