ডিএনএ পরিবর্তন থেরাপিতে সারবে রক্তস্বল্পতা

রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ স্বাভাবিকের তুলনায় কম থাকলে তাকে রক্ত স্বল্পতা বলে। রক্তের অন্যতম উপাদান হল লোহিত রক্ত কণিকা। লোহিত রক্ত কণিকার মধ্যে রয়েছে হিমোগ্লোবিন নামে এক প্রকার পদার্থ। এর অভাব হলে মুখ ও চোখ ফ্যাকাশে দেখায়, চোখের নিচের পাতার ভেতরের দিকটা সাদা হয়ে যায়।

তবে এ সমস্যা নাকি ডিএনএ পরিবর্তন থেরাপির মাধ্যমে দূর করা সম্ভব। এমনটাই দাবি করেছেন বিজ্ঞানীরা।

এ রোগে আক্রান্ত ফরাসি কিশোর-কিশোরীদের অস্থি মজ্জায় জিনগত নির্দেশনা পরিবর্তন করেছেন বিজ্ঞানীরা। এতে তাদের শরীরে সুস্থ লোহিত রক্তকণিকা তৈরি হতে দেখা গেছে।

নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল মেডিসিনের ফলাফলে দেখা যায়, এ পদ্ধতিতে কিশোর-কিশোরীর শরীরে ১৫ মাস আগে স্বাভাবিক রক্ত তৈরি হয়েছে।

প্যারিস বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ফিলিপ বলেন, এ পদ্ধতি ব্যবহারে রোগীর রোগ শরীরে কোনো ব্যথা নেই এবং তাকে দীর্ঘদিন হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার প্রয়োজন হয় না।

গবেষণায় এ থেরাপিটি শিশুদের মধ্যে ১৫ মাসের জন্য প্রয়োগ করা হয়। এ সময় তাদের কোনো ওষুধও দেয়া হয়নি। তারপরও আশানুরূপ ফল পেয়েছেন গবেষকরা।

যে কিশোর-কিশোরী এ চিকিৎসা নিয়েছে তার অভ্যন্তরীণ ক্ষত সারাতে প্লীহা সরানো হয়েছে এবং তার কোমর প্রতিস্থাপনেরও প্রয়োজন হয়েছে। প্রতি মাসে তাকে হাসপাতালে গিয়ে ত্রুটিপূর্ণ রক্ত পরিবর্তন করতে হয়েছে।

চিকিৎসকরা তার অস্থিমজ্জা সরানো (অস্থিমজ্জা থেকে হেমাটোপয়েসিস প্রক্রিয়ার মাধ্যমে লোহিত রক্তকণিকা উৎপন্ন হয়) এবং যেখানে রক্ত উৎপন্ন হয় জেনেটিক্যালি তার ডিএনএ খুঁত বের করে ক্ষতিপূরণের জন্য এটা বদলে দিয়েছিলেন।

Related posts

Leave a Comment