কোরীয় উপদ্বীপ অভিমুখে মার্কিন রণতরী

মুক্তবার্তা ডেস্ক:উত্তর কোরিয়ার পারমানবিক এবং ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচী নিয়ে ক্রমবর্ধমান উদ্বেগের মধ্যেই কোরীয় উপসাগর অভিমুখে রণতরী মোতায়েন করেছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির সেনাবাহিনীর আদেশে পাঠানো ওই রণতরীতে রয়েছে একটি বিমানবাহী জাহাজ এবং কয়েকটি যুদ্ধজাহাজ।

মার্কিন প্যাসিফিক কমান্ড জানিয়েছে এই সামরিক স্থাপনা এখন প্রশান্ত মহাসাগরের পশ্চিমে অগ্রসর হচ্ছে। প্রশান্ত মহাসাগরের পশ্চিমে যাত্রা করা বাহিনী সেখানে তাদের পূর্ণ যুদ্ধ প্রস্তুতির অংশ হিসেবেই যাচ্ছে।

কার্ল ভিনসনে অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান, সামরিক হেলিকপ্টার, দুটি মিসাইল ডেস্ট্রয়ার এবং একটি মিসাইল ক্রুজার রয়েছে। এ রণতরী থেকে বিমান হামলার পাশাপাশি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করে যে কোনো লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালানো সম্ভব। একইসঙ্গে শত্রুপক্ষের ক্ষেপণাস্ত্রের হামলা ঠেকাতেও বিশেষ সক্ষমতা আছে এ রণতরীর।

যুক্তরাষ্ট্রের প্যাসিফিক কমান্ডের মুখপাত্র ডেভ বেনহাম বলেন, ‘এ অঞ্চলে উত্তর কোরিয়ার সামরিক হুমকি এখনো বেশ জোরালো। দেশটির বেপরোয়া, দায়িত্বজ্ঞানহীন এবং বিরক্তিকর পারমাণবিক ও ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচির কারণে সংশ্লিষ্ট এলাকার নিরাপত্তা রক্ষায় রণতরী মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’

ওই অঞ্চলে উত্তর কোরিয়ার ক্রমাগত দায়িত্বহীন পারমানবিক পরীক্ষা চালানো ও ক্ষেপণাস্ত্রের সংখ্যা বাড়িয়ে চলার মাধ্যমে যে ব্যাপক ঝুঁকি তৈরি হয়েছে, তা সামাল দিতেই এই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

মূলত এই নৌবহরটির অস্ট্রেলীয় বন্দরের উদ্দেশ্যে রওনা হবার কথা ছিলো। পরবর্তীতে এর গতিপথ পরিবর্তনের নির্দেশ প্রদান করা হয়। এটি এখন সিঙ্গাপুর হয়ে পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দিকে ধাবিত হচ্ছে।

মাত্র কদিন আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছিলেন, উত্তর কোরিয়ার পরমাণু হুমকি মোকাবেলায় একাই পদক্ষেপ নিতে পারে তার দেশ।

উত্তর কোরিয়া এ পর্যন্ত বেশকয়েকটি ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে এবং বিশেষজ্ঞদের মতে তারা যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূ-খন্ডে পৌছাতে সক্ষম এমন দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র নির্মাণের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। উত্তর কোরিয়া বুধবার জাপান সাগরে মাঝারি পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের যুক্তরাষ্ট্র সফরে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠকে এই বিষয়টি প্রাধান্য পায়।

Related posts

Leave a Comment